Bengali website Exit Reader Mode

Bengali sad story, ছেঁড়া মালা

Bengali sad Story, chera mala

Bengali sad story :- পড়তে ভালবাসেন? তাহলে এই গল্পটা আপনার বহুকাল মনে থাকবে। Bengali sad story সবাই লিখতে পারে না। তাই এই গল্পটা পড়ার দাবী করছি।  

 

Bengali sad story

বাইকটাকে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে দূরের পলাশ গাছগুলোর দিকে তাকিয়ে আনমনা হয়ে আছে সুবিমল। দুচোখ জুড়ে লাল ফাগুনের আগুন লেগে আছে যেন।

আজ কতদিন পর দেখা হয়েছিল মালবিকার সঙ্গে। মালবিকা সেন। সেই কলেজের উজ্জ্বল যৌবনা অহংকারি মালবিকা সেন। বহু হৃদয় হন্তারক মালবিকা সুবিমলের মনটাকেও মাড়িয়ে দিয়েছিল হাই হিলের তলায়।

সেই মালবিকার সঙ্গে দেখা হয়েছিল বলেই হয়তো সুবিমল এখনো আনমনা হয়ে আছে। আজ নয় কাল করে করে বিয়ে আর করা হয়নি ওর। তাই বাঁধনছাড়া জীবনে ও নিজেই নিজের মালিক। কলেজ পেরিয়েই মালবিকার বিয়ের খবরটা কানে এসেছিল সুবিমলের। আর এতকাল কোনও যোগাযোগ ছিল না। আজ হঠাৎ দেখা। না ঠিক দেখা নয়, তারচেয়েও যেন বেশি কিছু।

কলেজ পেরিয়ে সুবিমল পেট বাঁচাতে বেরিয়ে পড়েছিল বেঙ্গালোর। সেখান থেকেই শুরু জীবনের নানান অধ্যায়। যদিও সুবিমলের জীবন নিয়ে লেখার মতো সময় এখন আমার নেই। সুবিমলের গল্প না হয় অন্য একদিন হবে।

Bengali sad story part 2

ওই লোকটার নামই মনে হয় আলোক। না না বেশি গভীর ভাবে ভাবানোর সময়ও এখন আমার নেই তাই বলেই রাখি আলোক মালবিকার বর। আবার ঠিক বরও নয়, বর না বলে বর্বর বলা ভাল। মালবিকার মতো মেয়েও দেখছি ওই ছেলেটার ভয়ে যেন সিটিয়ে গেছে। শুকিয়ে গেছে। আজ সপিংমলে দাঁড়িয়ে সুবিমল ওদের দুজনকেই দেখছিল। মালবিকার দিকে তাকিয়ে ওর বারবার মনে পড়ছিল, “তোদের বাড়িটার চেয়ে আমাদের বাথরুমটাও বড়। তোকে বিয়ে করলে থাকব কোথায় ?…” আরও কত ছেঁড়াফাটা টুকরো টুকরো কথা।

সুবিমল নিজেও জানত মালবিকাকে বিয়ে করলে ওর জীবনটাই… তবুও কেন যেন টানত মালবিকা। মালবিকাকে একবার দেখার জন্য… না থাক গল্পে গল্প বাড়ে। যারা প্রেম করেছে বা প্রেমে পিছলে পড়েছে তারা সবাই একে অপরের জন্য কিছু না কিছু না করেছে। এ আর লেখার মতো নতুন কিছু নয়।

আজ মালবিকাকে এমন ম্যাড়ম্যাড়ে দেখে সুবিমলের কেমন যেন অজানা অচেনা অসহায় এক ফিলিংস হচ্ছিল। এমনটা এর আগে কোনওদিন হয়নি ওর।

ঘটনাটা ঘটল মলের চার তলায় খাবার খেতে গিয়ে। এক্কেবারে মালবিকার মুখোমুখি দুএকটা টেবিল দূরেই একটা ফাঁকা জায়গা পেল সুবিমল। অনেকক্ষণ চোখাচোখি হল দুজনার। মালবিকার দুচোখ জুড়ে যেন কত কথা। বারবার চোখ নামিয়ে নিতে হচ্ছিল সুবিমলকে।

খাবার খাওয়ার পর আর অপেক্ষা করেনি সুবিমল। নিজের ভাড়া নেওয়া হোটেলে গিয়ে উঠেছিল। আজ আবার ওর অগ্নি পরীক্ষা। বিয়ে করেনি, তেমন ভাবে প্রেমও করা হয়নি। আজ প্রথমবার একটু উষ্ণতা পাওয়ার সুযোগ। অফিসের নির্মল বাবু বলেছেন, ‘তোমাকে কিছুই করতে হবে না ও মেয়ে নিজেই তোমাকে সব করিয়ে নেবে।’

তবুও ভয় আর উত্তেজনায় ভেতরটা কাঁপছিল সুবিমলের। মাঝেমাঝে মালবিকার মুখটা সব উত্তেজনায় জল ঢেলে দিচ্ছিল ঠিকই তবুও প্রথম মিলিত হওয়ার উত্তেজনা কি জিনিস তা টের পাচ্ছিল সুবিমল।

চারটা বাজতে পাঁচ। কলিংবেলের টিংটাং শব্দে শরীরের প্রতিটা রোম দাঁড়িয়ে গেল সুবিমলের। মনে পড়ল মালবিকার মুখটা একবার। মনে পড়ল মালবিকাকে কল্পনার রেখে উত্তেজিত হওয়া মুহূর্তগুলো। আবার সব হারিয়ে গেল কলিংবেলের শব্দে। সারা শরীর জুড়ে মিলত হওয়ার গন্ধ উঠল আবার। মাদল বাজল বুকের ভেতর।

নাখে-মুখে পর্যাপ্ত বাতাস ভরে নিয়ে দরজা খুলে দাঁড়াল সুবিমল। আর ওপারে যৌবনের ঝড় বুকে নিয়ে মালবিকা দাঁড়িয়ে। কত বছর ধরে যার সঙ্গে মিলিত হওয়ার জন্য সারা শরীরে বাজত, ‘মিলন হবে কত দিনে?’ সুর সেই আজ দরজার বাইরে দাঁড়িয়ে। দুহাতে মুঠো মুঠো নিয়ে এসেছে শরীর। সুবিমলের মুখ দিয়ে শুধু বেরিয়ে এল, ‘তোমাকে তো দেওয়ার মতো আমার কিছুই নেই মালা… টেবিলের উপর মানিব্যাগ নামানো আছে যতটা নিলে তুমি ঠাণ্ডা হবে ততটা নিয়ে নিও।’

Bengali sad story part 3

লজ থেকে বেরিয়ে আসার সময় হাত-পা-মাথা সব কাঁপছিল সুবিমলের। সব যেন ছিঁড়ে যাচ্ছে। কিছুতেই কিছু মিলছে না আজ আর। ‘মালা… মালবিকা… মালবিকা সেন…!’ গলা ভারি হয়ে আসছিল, আর কথা গড়িয়ে নামতে পারছিল না গলা দিয়ে।

পরিচিত হোটেল। পরিচিত ম্যানেজার। পরিচিত বাইক। পরিচিত এই পলাশের বন। শুধু অচেনা হয়ে গেছে সময়। মালবিকা। অচেনা হয়েগেছে সুবিমল নিজেও।

সমাপ্ত

Bengali story

Bengali sad shayari

Bangla kobita

Bangla choti golpo

Spread the love