সমস্যার সমাধান

সমস্যার সমাধান

আপনি কি সত্যিই ওকে খুশি করতে পারছেন না? তাহলে এখনই এই সমস্যার সমাধান হওয়া দরকার। যদি আপনি অক্ষমতায় ভুগছেন তাহলে এর সমাধান জেনেনিন।

শিলাজিৎ গোপন সমস্যার সমাধান

 

 

আজকে আপনার সব সমস্যার সমাধান হবে

প্রথমেই বলে রাখি যদি দীর্ঘদিন আপনি এই অক্ষমতায় ভুগছেন, দুতিন মিনিটের ভেতর আপনার পরাজয় হচ্ছে, আপনি ধিরে ধিরে নিজের উপর বিরক্ত হয়ে উঠছেন, তাহলে এই সব সমস্যার সমাধান হবেই।

আমাদের কিছু খারাপ অভ্যাস আমাদেরকে অক্ষম বানিয়ে দেয়। হাতের শক্ত তালুতে আরাম নিতে নিতে একদিন আমাদের সঠিক আরাম নেওয়ার মাধ্যমেও আরাম হয় না। আমরা এক দু মিনিটে পরাজিত হয়ে যাই।

আজকের দিনে পুরুষের এই অক্ষমতার জন্যই হাজার হাজার সম্পর্ক ভেঙে যাচ্ছে। প্রতিটি নারীর একটি স্বাভাবিক চাহিদা আছে, যা পুরণ করা তার স্বামীর দায়িত্ব এবং কর্তব্য। আপনি যদি তা না পারেন তাহলে আপনাকে হয়তো সব হারাতে হবে।

মানুষের শারীরিক চাহিদা মানুষকে বিবেক বুদ্ধি শূন্য করে দেয়, আপনার অক্ষমতা আপনার স্ত্রীকেও ভুল পথে ঠেলে দিতে পারে। যদি এখনো সময় আছে তাহলে সমাধান করে নিন।

আজকের দিনে প্রায় ৬০% পুরুষ এই অক্ষমতায় ভোগেন। যদি আপনিও তাদের মতো একজন তাহলে বলব এই লেখা আপনি পড়ছেন মানে আপনার হাতে এখনো সময় আছে।

আসলে আমাদের অগ্রাহ্য আর সময়ে সিদ্ধান্ত নিতে না পারার জন্যই আমরা বড় বিপদের দিকে এগিয়ে যাই। আশাকরি আপনি এই ভুল করবেন না।

গোপন সমস্যার সমাধান

হ্যাঁ আমার পরিচয় দেওয়া দরকার,-

না আমি কোনও ডাক্তার নই, কোনও বিজ্ঞাপন দাতাও নই। আমি আপনার মতো একজন সাধারণ মানুষ। আমার নাম সৌমেন্দ্র রক্ষিত, আমার বাড়ি মেদিনীপুর জেলার তমলুকে। আমি জানি আপনার সঙ্গে আমার দেখা হবে না, তাই নাম ঠিকানা দিতেও লজ্জা হল না।

আমি এই রোগে এতটাই ক্লান্তছিলাম যে নিজেকে শেষ করে দেওয়ার কথাও মাথায় আসত। বুঝতে পারছিলাম আমার স্ত্রী অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে যেতে পারে। কিন্তু আমার অক্ষমতার জন্য আমি কিছুই বলতে সাহস পেতাম না।

ও দিনরাত ফেসবুকে ডুবে থাকত। বিরক্ত থাকত। ছোটখাটো বিষয়ে মাথা গরম করত। এমনকি ডিভোর্স দেওয়ার কথাও মাঝে মাঝেই বলত।

আমি তেমন কিছুই বলতে পারতাম না। কিছু বলতে গেলেই জানতাম স্ত্রী আমাকে নপুংসক বলে আবার গালি দেবে। আমার হাতে সময়ছিল না। বললে বিশ্বাস করবেন না আমি কত ডাক্তার দেখিয়েছিলাম, এমনকি কবিরাজ পর্যন্ত বাদ রাখি নি। বন্ধুদের কথা শুনেও এটা ওটা কত কি খেয়েছি করেছি। কিছুই হয় নি।

ডাক্তারের ঔষধ দুএকদিন কাজ করত, আবার যেমন কে তেমন। সারা রাত জেগেই কাটত। স্ত্রী আমার সঙ্গে শুতেও চাইত না। জানেন আমি নিজের ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য মদ পর্যন্ত খেয়েছি বহুরাত। কিন্তু তাতেও লাভ হয় নি। নেশা মাতাল বানাতে পারে, কিন্তু পুরুষ বানাতে পারে না।

একদিন আমার স্ত্রীর এক বান্ধবীর বর আমাকে শিলাজিৎ এর নাম বলল। আমি ১০১% সিওর ছিলাম, ফালতু আবার পয়সা যাবে। কিন্তু উপায়ও তো ছিল না।

এর আগে আমি শিলাজিৎ এর নামও শুনি নি। পরে জেনেছি শিলাজিৎ কত জনপ্রিয়। এবং ওদের কত রকমের প্রোডাক্ট আছে।

প্রথমে অবিশ্বাস করেই এক বন্ধুকে দিয়ে আমাজনে অর্ডার করিয়েছিলাম। তখন জানতাম না শিলাজিৎ কোথায় পাওয়া যায়, শিলাজিৎ এর দাম কত।

জানি না আপনাদের বিশ্বাস হবে কি না, কিন্তু শিলাজিৎ নেওয়ার তৃতীয় রাত থেকেই আমার স্ত্রী আমার সঙ্গে পেরে উঠত না। আধ ঘন্টাতেও আমার কিছুই হয় না। এখন আমার কমসে কম হ্যাঁ কমসে কম ৪৫ মিনিট সময় লাগে।

আমার স্ত্রী আমাকে ভয় পেতে শুরু করেছিল। পরে আমি ওকে ওর বান্ধবীর বর তপনদার কথা এবং শিলাজিত এর কথা দুই বলেছি।

আমার বেশ কয়েকজন বন্ধুও আমার কথায় শিলাজিত ব্যবহার করছে। কেউ আজ ৩০ মিনিটের নিচে থামে না। এটা ম্যাজিক নয়। ভারতীয় আয়ুর্বেদ শক্তি।

হ্যাঁ তিন মাস এই ঔষধ খেতে হবে। এটা ভেবে খারাপ লাগে যে নিজের যৌবন বয়সের মাত্রতিরিক্ত বদ অভ্যাসের ফলে আমাকে তিন মাস শিলাজিত খেতে হয়েছে। কিন্তু আনন্দ হয় রাতের ৪৫ মিনিট + ৪৫ মিনিট টোটাল দেড় ঘন্টার কথা ভাবলে। হ্যাঁ ভোরেও একবার মিলন করতেই হয় আমাকে। আমার একরাতে দুবার লাগেই এখন।

শিলাজিতে কোনও সমস্যা নেই ঠিক কথা কিন্তু একটা সমস্যার কথা জানিয়ে রাখা দরকার। স্ত্রীর মাসিক চলার সময় আপনার অবস্থাও খারাপ হয়ে যাবে। খুব সমস্যা হয়, অস্থির লাগে। হাতেই ভরসা তখন। কিন্তু যারা মিলনের সঠিক স্বাদ একবার পেয়েছেন তারা জানবেন যে হাতে সেই স্বাদের এক আনাও পাওয়া যায় না।

অথচ একদিন হাতের স্বাদকেই অপূর্ব মনে হত। এখন ভাবলে নিজেকে মূর্খ মনে হয়। যদি আমি বিয়ের পর পর শিলাজিৎ এর কথা জানতে পারতাম তাহলে দু দুটো বছর আমার নষ্ট হত না।


উপরের লেখাটি সোমেন্দ্র রক্ষিত মহাশয় বাই ইমেলে আমাদের ঠিকানায় গতকাল পাঠিয়েছেন। উনি পেশায় প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক। আমাদের মনে হল লেখাটি দ্রুত প্রকাশ করা দরকার। এই লেখা থেকে আপনাদের কারু উপকার হলে সেই ধন্যবাদ সৌমেন্দ্র বাবুর প্রাপ্য।

শিলাজিত

আরও পড়ুন,- চটি গল্প পড়া উচিৎ না অনুচিত

 

Spread the love

Leave a Reply