বাড়বে লকডাউন

বাড়বে লকডাউন

হ্যাঁ বাড়বে লকডাউন । দেশের পরিস্থিতির কথা ভেবে বাড়ানো হবে লকডাউন। যদিও তেলেঙ্গানা সরকার অলরেডি লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছে।

বাড়বে লকডাউন জল্পনা তুঙ্গে

বেশিরভাগ রাজ্য থেকেই দাবী আসছে লকডাউন বাড়ানোর জন্য। পরিবেশ পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে বাড়ানো হতে পারে লকডাউন। এবং লকডাউন বাড়ার সম্ভাবনাই বেশি।

এই দু-একদিনে  করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রবল ভাবেই বেড়েছে। করোনা আক্রান্ত আজ রাতেই পাঁচ হাজার পেরিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা। মৃত্যু হয়েছে ১২৪ জনের। যদিও পশ্চিমবাংলার তথ্য অসত্য বলেই দাবী সকলের। বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন, রাজ্যসরকার গোপন করছে করোনা। ১০ লাখ টাকা দেবে না বলেই এই পরিকল্পনা করেছে রাজ্যসরকার। এর আগেও ডেঙ্গুতে মৃত্যু হলে অজানা জ্বরে মৃত লেখার নির্দেশ দিয়েছিল রাজ্যসরকার এবার করোনায় মৃত্যুকে সরকার অন্যরোগ দেখাচ্ছে।

তেলেঙ্গানা চাইছে জুন জুলাই পর্যন্ত লকডাউন চলুক, দিল্লি মহারাষ্ট্র চাইছে অন্তত এই মাসটা লকডাউন থাকুক। পশ্চিম্বঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখনো এবিষয়ে কিছুই জানান নি।

কেন বাড়বে লকডাউন 

এই দুদিনে যে পরিমান আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে তা কেন্দ্রসরকার সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যসরকারকে বেশ চিন্তায় ফেলেছে। প্রায় দুদিনেই ডবল হচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এমন চললে লকডাউনের শেষদিন পর্যন্ত ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

ভারতের চিকিৎসা ব্যবস্থার দিকে নজর রেখেই লকডাউন বাড়বে বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। এদেশে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হওয়া মানে ভয়ানক পরিস্থিতি তৈরি হয়ে যাওয়া।

ভারতের মতো জনবহুল এবং জনঘনত্বের দেশে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হলে কল্পনাতীত ভাবে আক্রান্ত বাড়তে শুরু করবে।

পশ্চিমবাংলায় যেভাবে লকডাউন শুরু হয়েছিল বর্তমানে তার ছিটেফোঁটাও নেই। একাধিক পুলিশকর্মচারীকে ধমক দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী লকডাউন বিষয়টাকেই হালকা করে দিয়েছেন। এর সঙ্গে শুরু হয়েছে সবজির দোকান আর মিষ্টির দোকান খোলার হিঁড়িক।

এতকিছুর পরেও আরেকটা ভয় কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না সেটা হল নিজামুদ্দিন জময়েত ঘটনা। নিজামুদ্দিন সমাবেশ থেকে ফিরে বেশকিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটেছে যা সারা ভারতকে হতবাক করেছে।

সবকিছু চিন্তাভাবনা মাথায় রেখে লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত যদি সরকার নেয় তাহলে অবাক হওয়ার কিছুই নেই।

এখন দেশের অর্থনৈতিক চিন্তার থেকেও দেশের সুরক্ষার চিন্তা সরকারকে বেশি ভাবতে হবে। তাই দেশ এবং দেশবাসীর কথা ভেবে সরকার যদি আরও কিছুদিন ঘরবন্দী থাকার পরামর্শ দেয় তাহলে দেশবাসী সেটা মাথা পেতেই নেবে।

Spread the love

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.