বাঁকুড়ার শিরপুরা গ্রামে এক বধূর বস্ত্রহরণ

গৃহবধূর বস্ত্রহরণ বাঁকুড়ায়

নিউজ বাঁকুড়া- গত পরশুদিন (১৫/০৪/২০২০) রাত্রিবেলায় শিরপুরা গ্রামের (বাঁকুড়া, ছাতনা) আনন্দ বাউরী এবং ওর দাদা জয়দেব বাউরী দুই ভাই এর ভেতর জমি নিয়ে পারিবারিক ঝামেলা হয়। সেই ঝামেলা যখন দুই ভাই নিজেরা মিটমাট করতে পারে না তখন তারা পরেরদিন সকালে গ্রামের মানুষের কাছে সাহায্যের জন্য যায়। সাহায্যের জন্য যায় গ্রাম পঞ্চায়েত মেম্বার এবং পঞ্চায়েত প্রধানের (ঝুঁঞ্জকা) বাড়িতেও।

পঞ্চায়েত প্রধান বাবুনাথ মুর্মু বাবু দায়িত্ব দেন এলাকার মেম্বারকে।
কিন্তু গ্রামের মেম্বারকে ওদের এলাকায় না ঢোকার জন্য হুমকি দিয়ে ফোন করে ওই পাড়ার (নীলমুড়ি) ছেলেরাই। ফলে মেম্বার আর কিছুই করতে পারে নি।

পুরো বিষয়টি ওই দুই ভাই এর পাড়ার লোকেরাই বিচার বিবেচনা করার দায়িত্ব নেয়।

এবার ছোট ভাই আনন্দকে পঞ্চায়েত প্রধানের কাছে  যাওয়ার জন্য ওদের পাড়ার ছেলেরাই এক হাজার টাকা জরিমানা করে।
এরপর নীলমুড়ির লোকেরাই নিজেদের শালিসি সভায় নিয়ে গিয়ে বিচারের নামে শুরু করে এক পাশবিক অত্যাচার। দুই ভাই এর ঝামেলা মিটমাট করা তো দূর, মিটমাট করার নামে এক ফাঁকা মাঠে দুই ভাই এর পরিবারকে নিয়ে যায়। সেখানেই ছোট ভাই অনন্দকে বেঁধে রেখে ওর বৌ পূর্ণিমাকে পাড়ার লোকের মাঝেই বিবস্ত্র করা হয়।
পুরো বিষটা ঘটেছে উত্তম বাউরী, সঞ্জয় বাউরী, অজয়দেব বাউরী, সুনীল বাউরী, লক্ষী বাউরী, শ্যামলী বাউরী, পরীক্ষা বাউরীর দায়িত্বে।
পূর্ণিমাকে পাড়ার লোকের মাঝে উলঙ্গ করে এক পাশবিক খেলায় মাতে সবাই মিলে। পূর্ণিমা বহু চেষ্টা করেও ওদের কাছ থেকে পালিয়ে যেতে পারে নি। পুরো বিষয়টি আনন্দ বাউরীকে অসহায় ভাবে দেখতে হয়েছে।
এই ঘটনা ঘটানোর পর, আনন্দ এবং পূর্ণিমা সহ পুরো পরিবারকেই ঘরের ভেতরে ঢুকুয়ে বন্দী করে রাখা হয়।
আজ সকালে (১৭/০৪/২০২০) আনন্দ বাউরী পুনরায় মেম্বারের কাছে সাহায্যের জন্য আসে, মেম্বারের বাড়িতেই পূর্ণিমা বাউরী পুরো ঘটিনার বিবরণ দিতে গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এবং শিরপুরা গ্রামের মানুষ তাকে সুস্থ করার পর, পুলিশ প্রশাসনের দারস্থ হওয়ার জন্য বলে।
আজকে সকালেই ওরা ছাতনা থানায় গিয়ে পুরো বিষটি জানিয়ে আসে। থানা থেকে ইনভেস্টিগেশনের জন্য ভিলেজ পুলিশ পাঠায়। ভিলেজ পুলিশ এসে পুরো বিষটি যাচাই করে গেছে,  কিন্তু এখনো পর্যন্ত থানা থেকে বড় কোনও স্টেপ নেওয়া হয় নি। কাউকে গ্রেপ্তার করাও হয় নি।
Spread the love

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.