আমাদের শৈশব ও বর্তমান ভারতের ৭২ তম স্বাধীনতা দিবস

ভারতের ৭২ তম স্বাধীনতা দিবস আজ

অনেকটা পথ পেরিয়ে ভারত আজ ৭২ তম স্বাধীনতার দরজায় এসে দাঁড়িয়েছে।

কত রক্তেলেখা পথের পর এই পথ এসে মিশেছে ফুলের বাগানে। স্বাধীনতা শব্দটা শুনলেই স্কুলের বক্তৃতা গুলো মনে পড়ে।
সব শিক্ষকের শেষে মঞ্চে আসতেন প্রধান শিক্ষক। আমরা হাঁ করে শুনতাম ক্ষুদিরাম নেতাজি গান্ধীজী ভগৎ সিংবক্তৃতার আঁঁচ বাড়ত শেষের দিকে। আমাদের রক্ত টগবগ করে উঠত।
চোখে ভাসত বডার সিনেমাটা। মনে হত কেউ একটা বন্দুক এনেদিক তারপর দেখে নেব ইংরেজ কিংবা পাকিস্তান।
বক্তৃতা শেষে হাততালি কুড়িয়ে স্যার নেমে যেতেন। আমরা লুচি বোঁদেতে মন দিতাম।
স্কুলের খাবার বাড়লে গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা পরাধীন শিশুদের দেওয়া হত। ওদের হাতেও থাকত পতাকা। বাঁশের কঞ্চিতে সাদা কাগজ চিটিয়ে মাদার গাছের পাতা আর গেরিমাটি দিয়ে রঙ করা পতাকা। ওরা পরাধীন বলে ওতেই খুশি ছিল।

আজ ভারতে ৭২ তম স্বাধীনতা দিবস পালিত হচ্ছে। আমরা বেশিরভাগ গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে দেখছি। ভেতরে যারা আছে তারা লাল লাল কি যেন খাচ্ছে, চিনেও চিনতে পারছি না। হয়ত বা চেনাই বারণ।
আমাদেরকে কে কবে গেটের বাইরে বেরকরে দিয়েছিল আজও জানতে পারিনি।

এখন বুঝতে পারি স্বাধীনতা মানে ভাতের অধিকার নয়, নয় জামাকাপড়ের। স্বাধীনতা আধুনিক কবিতার মতো। বুঝেও বুঝতে পারি না কিছুতেই। খুব চেনা চেনা লাগে তবুও চেনার উপায় নেই।

আমাদের সারাঘর গুল আর ঘুঁটের ধোঁয়ায় যখন ভরে ওঠে তখন স্বাধীনতা আকাশে চাঁদ হয়ে ফোটে। আমরা বড়বড় চোখ নিয়ে তাকাই অধরা স্বাধীনতার দিকে।
আমার এমে ফাস্টক্লাস পাওয়া দাদা স্বাধীনতা কুড়িয়ে পেয়েছে  এক কাপড়ের দোকানে।
আমার আর স্বাধীনতা পেতে কয়েক ফুট বাকি। তারপর আমিও বেরিয়ে পড়ব ফেরিওয়ালা হয়ে দরজায় দরজায়। স্বাধীনতা নে-বে-গো বাবু স্বা-ধী-ন-তা….
তুমি দরজা এঁটে ঘুমিয়ে থেকো না যেন।
ভারতের ৭২ তম স্বাধীনতা দিবসের আগাম শুভেচ্ছা।
বাপ্পাদিত্য মুখোপাধ্যায়।
জয় হিন্দ। জয় ভারত।

Active Search Results

Spread the love

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.